রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৫৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
দুমকিতে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে সত্তরোর্ধ মানুষিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধা ! দুমকিতে বিএনপির ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত। পটুয়াখালী বন্যাকবলিতদের পাশে এবিপার্টি। দুমকির পাঙ্গাশিয়ায় জাতীয় শোক দিবস পালন দুমকির পাঙ্গাশিয়ায় জাতীয় শোক দিবস পালন দুমকিতে তৈলাক্ত কলাগাছ ও সাঁতার প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত দুমকিতে করোনা সচেতনতায় শ্রমিকলীগ নেতা মনিরের ৫ হাজার মাস্ক বিতরণ। ‘এসো গাছ লাগাই শহর সাজাই’ শ্লোগান নিয়ে অক্সিজেনের ফেরিওয়ালারা রোপন করলো গাছ পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের সদস্যদের মাঝে এবিপার্টি’র স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন। কুয়াকাটায় সাংবাদিকদের মাঝে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ।

দুমকিতে ভিটি আছে ঘর নাই চান বরুর

 

দুমকি(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি \ পটুয়াখালীর দুমকিতে প্রতিবেশীদের বাড়ীতে ঝিয়ের কাজ করেই জীবিকা চলছে ষাটোর্ধ বিধবা চানবরুর (৬৭)। সহায় সম্বল বলতে স্বামীর রেখে যাওয়া ভিটি ছাড়া কিছুই নেই। ২০০৭সালে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণীঝড় সিডরের তান্ডবে ঝুপড়ি ঘর উড়িয়ে নেয়ার পর থেকে ভিটিটি শূণ্য রয়েছে। বর্তমানে দু’মুঠো খাবারের প্রয়োজনে ঝিয়ের কাজ করছেন এবং থাকছেন প্রতিবেশীদের বাড়িঘরে। এমন অসহায় অবস্থায় খেয়ে না খেয়ে চলছে মানবেতর জীবন-যাপন।
জানা গেছে, উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত মোজাহার মুন্সীর বিধবা স্ত্রী চানবরু বেগম(৬৭) দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। ২ ছেলে ১ মেয়ে থাকলেও কেউ তার খোঁজ খবর নেয় না। প্রাকৃতিক দুর্যোগ-বন্যায় শেষ সম্বল ঘরটুকু কেড়ে নেয়। নি:স্ব অসহায় চাঁনবরুর দিন চলে প্রতিবেশীদের কাছে চাইয়ে চিন্তে।
অসহায় বিধবা চানবরু বলেন, বন্যায় আমি নি:স্ব হয়ে গেছি। স্বামীর রেখে যাওয়া মাথা গোজার শেষ স্মৃতিটুকু বন্যায় তছনছ করে দিয়েছে । বয়স-তো কম হইল না ঘরতো দুরের কথা একটা বয়স্ক ভাতাও পাইলাম না। খেয়ে না খেয়ে থাকা যায় কিন্তু ঘর না থাকলে দিন-রাত পার করা খুব মুসকিল। সরকার কত মানুষেরে ঘর দেয় আমি গরীব হইয়াও একটা ঘর পাইলাম না। শুনছি টাকা ছাড়া নাকি ঘর মিলে না। আমার-তো টাকা নাই তয় আমি কি আর ঘর পামুনা?
স্থানীয় ইউপি সদস্য চানবরুর দুর্দশার কথা স্বীকার করে বলেন, ৭নং ওয়ার্ডে ভিজিডি, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা সহ সরকারী সুবিধার চাহিদা অনেক কিন্তু পাওয়ার সংখ্যা খুবই কম। সীমিত সংখ্যেক কার্ড থাকায় দেয়া যায়নি। আগামীতে যোগাযোগ করলে বয়স্কভাতার তালিকায় নাম দিয়া দেয়া হবে।
ইউপি চেয়ারম্যান মো: জাফর উল্লাহ বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। অসহায় বৃদ্ধের জন্য কিছু একটা করতে পারলে ভালোই লাগবে। চেষ্টা করবো সরকারী ভাবে ঘর তুলে দেয়া যায় কিনা।
দুমকি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল ইমরান বলেন, যদি সে ঘর পাওয়ার যোগ্য হয় তাহলে তাকে একটি সরকারী ঘরের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে ।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2019 payra24.com
Design & Developed BY payra24.com