বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:৪৭ অপরাহ্ন

পায়রায় সেতু নির্মাণের খবরে আমতলীর মানুষ আনন্দে আত্মহারা

আমতলী প্রতিনিধি ॥
‘মোগো পায়রা গাঙ্গে সেতু অইবে, মোগো আর খেওয়ায় চইর‌্যা গাং পার আইতে অইবে না। মোগো শ্যাখের মাইয়্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গাঙ্গে ব্রীজ দেছে। হুনছি এ ব্রীজ দ্যাখতে বিদেশ গোনো লোক আইছে। এই সেতু দিয়া পায়রা সমুদ্র বোন্দইরদ্যা মালামাল মোংলা লইয়্যা যাইবে’
এসব কথা বলেছেন আমতলী পৌর শহরের ওয়াবদা সড়কের সত্তর বছর বয়সি মোঃ আক্কাস খলিফা। তার মতো একই অভিব্যক্তি স্থানীয় সব মানুষের। তারা আনন্দে উৎফুল্ল হয়ে বলেছেন, ‘মোগো যে বয়স হ্যাতে মোরা এ সেতু দেইখ্যা যাইতে পারমু। আল্লায় যেন মোগো সেতু দিয়া আডাইয়্যা হেইয়্যার পরে মারণ দেয়।’
পায়রা সমুদ্র বন্দর  হতে মংলা সমুদ্র বন্দরের সংযোগ সহজীকরণ ও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী সংসদীয় আসন আমতলী-তালতলী’র সাথে জেলা শহর বরগুনার যোগাযোগের জন্য পায়রা নদীর উপর সেতু নির্মাণের প্রস্তাব চূড়ান্তভাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রীসভা। উন্নয়নের মহাসড়কে যুক্ত হতে যাচ্ছে আমতলী-বরগুনা। আমতলীর পায়রা নদীর এ সেতুটি নবম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু নামে পরিচিত হবে। এ অঞ্চলের মানুষের প্রাণের দাবী ছিল পায়রা নদীতে সেতু নির্মাণ। সেতু নির্মিত হলে দক্ষিণাঞ্চলের ৩০ লক্ষাধীক মানুষের স্বপ্নপূরণ হবে।
দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগ, ব্যবসা-বানিজ্য, শ্রম বাজার, জাতীয় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, মানুষের আর্থ- সামাজিক উন্নয়নে পায়রা নদীর সেতু হবে নতুন দিগন্তের শুভ সুচনা। পায়রা সমুদ্র বন্দর ও মংলা সমুদ্র বন্দরের মাঝে তৈরি হবে একটি মেল বন্ধন। অল্প খরচে পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে মংলা সমুদ্র বন্দরে পণ্য আনা ও নেয়া করা যাবে। দক্ষিণাঞ্চলের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। বরগুনার ও আমতলীর মাঝে সাড়ে তিন কিলোমিটার পায়রা নদীর ফেরী পারাপার হতে যানবাহনগুলোকে এখনও ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়। সেতু নির্মাণ হলে ওই সড়কে চলাচলে মানুষের আর ভোগান্তি থাকবে না ।
পায়রা নদীর উপর সেতু নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য স্টুপ কনসালট্যান্টস লিমিটেড (ভারত), বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ডিজাইন কনসালটেন্ট লিমিটেড ও ফিএন্ডই লিমিটেড কাজ করছে। ওই সমীক্ষা টিম পায়রা নদীর আমতলী-বরগুনার ৩/৪ টি হার্ট পয়েন্টে ইতিমধ্যে সমীক্ষা শেষ করেছে।
পায়রা সেতু নির্মাণের খবরে আনন্দের বন্যা বইছে আমতলী উপজেলার সাধারণ জনগনের মাঝে। মন্ত্রী পরিষদে পায়রা নদীতে ব্রীজ নির্মাণে চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়ায় সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) আমতলী পৌর মেয়র মতিয়ার রহমানের উদ্যোগে আনন্দ র‌্যালি বের হয়। হাজার হাজার মানুষের অংশ গ্রহনে আনন্দ র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে  পায়রা নদীর তীর ফেরিঘাটে মেয়র মোঃ মতিয়ার রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, ইউপি চেয়ারম্যান মোতাহার উদ্দিন মৃধা, আলহাজ এ্যাড.নুরুল ইসলাম, শহীদুল ইসলাম মৃধা,একেএম নুরুল হক তালুকদার, বোরহার উদ্দিন মাসুম তালুকদার ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিম শাহজাদা আকন প্রমুখ।
পৌর শহরের বাসিন্দা ফজলুর রহমান হাওলাদার বলেন, পায়রা নদীতে সেতু হবে এটা এ অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিলো। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত হচ্ছে। এ সেতু নির্মিত হলে এলাকার মানুষের জীবন-মানের অনেক উন্নতি হবে।
উপজেলা আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. মোঃ মনিরুজ্জামান মনি সাগরকন্যাকে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখহাসিনা দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে পায়রা নদীতে সেতু নির্মাণের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে। এর চেয়ে আশার কথা আর কিছুই হতে পারেনা।
আমতলীর পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ মতিয়ার রহমান বলেন, এ সেতু হবে দক্ষিণাঞ্চলবাসীর জন্য আশির্বাদ। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দক্ষিনাঞ্চল হবে উন্নয়নের রোল মডেল। এ সেতু বাস্তবায়িত হলে আমতলী হবে অর্থনৈতিক জোন।
আমতলী উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ জিএম দেলওয়ার হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের রূপকার। যেখানেই উন্নয়ন, সেখানেই শেখ হাসিনা। তিনি আরও বলেন, দক্ষিণাঞ্চল হবে অর্থনৈতিক জোন। পায়রা নদীর সেতুই হবে দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনৈতিক জোনের মূলদ্বার। এত উন্নয়ন কেবল প্রধানমন্ত্রীর দ্বারাই সম্ভব।
বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড.ধীরেন্দ্র বেদনাথ শম্ভু বলেছেন, ২০১০ সালে বরগুনার সার্কিট হাউস ময়দানে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় তার কাছে বরগুনাবাসীর পক্ষে ৪২টি দাবী উত্থাপিত হয়েছিল। ওই দাবীর মধ্যে ২৪ নম্বর দাবীটি ছিল পায়রা নদীতে সেতু নির্মাণ। প্রধানমন্ত্রী ওই দাবী বাস্তবায়ন করেছেন। বরগুনাবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2019 payra24.com
Design & Developed BY payra24.com